অন্তিম পুরুষ

অন্তিম পুরুষ

অন্তিম পুরুষ 150 150 সীমানা ছাড়িয়ে

অন্তিম পুরুষ
************

মাঝে পড়ে নিথর পেট্রক্লুস,
স্তব্ধ বিশ্ব চরাচর,
সূচনার প্রহর গুনছে ট্রোজান যুদ্ধ।
বীর সন্তান একিলিসের অঘটনের ভয়ে ভীত দেবী থেটিস।

পেছনে ট্রোজান দুর্গ, ট্রয়ের স্বর্ণোজ্জ্বল ইতিহাস আর
সামনে একিলিস।
শেষ ঝড়ের আগে মাহেন্দ্রক্ষণেও অবিচল হেক্টর,
সব মুগ্ধতা কেড়েছে তাঁর
সাক্ষাৎ মৃত্যুরূপী একিলিসের দুই চোখ।
আশৈশব যে একিলিসের গাথা শুনে তিনি আজ অপরাজেয়,
প্রতিদ্বন্দ্বী সেই একিলিস!
জীবনদান যে অমর হবে জানেন হেক্টর,
শেষবার শিশুপুত্রকে লুফে নেওয়ার সময় থেকেই।

কিছু ঝরা পাতা মুখর হওয়ার পর
লড়াইয়ের আগে মাথা নোয়াতে নত হলেন হেক্টর,
অভ্যস্ত ও অনুগত হাত
সাধনালব্ধ অভ্যাসে করল অস্ত্রধারণ!

অবাক একিলিসও।
অমোঘ মৃত্যুর দিকে অপলক বিস্ময়ে তাকিয়ে এক নশ্বর মানুষ!
স্ত্রীকে বিদায় জানিয়ে আসার সময়েই তো এ জানে,
এ বিদায়ই শেষ বিদায়!
এই রৌদ্রোজ্জ্বল সকালে,
সেই হেক্টরের আয়ু আর তো মাত্র কিছুক্ষণ।
বীরের অন্তিম পরিণতি মনে করে, আজ স্থানু একিলিস।
হেক্টরের চোখে নেই রক্তলোলুপ জিঘাংসা,
সে কি তাঁকে জড়িয়ে ধরতে চায়!
একটা ঝোড়ো হওয়া,
একরাশ তৃপ্তি নিয়ে চোখে, পেট্রক্লুসের পাশে
লুটিয়ে পড়লেন হেক্টর।

দ্বিতীয় শেষ পুরুষের দেহ কোলে তুলে
অশ্রুসজল চোখে, রথের সওয়ার হলেন একিলিস।
আর বারোদিন।
জানেন থেটিস, অন্তিম পুরুষও মিলিয়ে যাবে মহাকালে
ইলিয়াডের উপকথা কোমরবন্ধে নিয়ে।

দেবাঞ্জন বাগচী।

Leave a Reply

Solve : *
11 × 16 =